বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:৩০ পূর্বাহ্ন
প্রধান সংবাদ :
রুমায় কেএনএফ আতঙ্কে গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছে ৪০টি পরিবার বিএসএমএমইউতে সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতালে ১৪টি বিভাগের বিশেষজ্ঞদের রোগী দেখা শুরু আলীকদম সীমান্ত দিয়ে পাচার হচ্ছে ইয়াবাসহ শত শত অবৈধ গরু- মহিষ পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের আন্দোলন ও গণমিছিল  আজিজ নগর- গজালিয়া ১৮কিলোমিটার সড়কের দুর্ভোগ;  তিন যুগেও হয়নি সড়কের কাজ বঙ্গবন্ধুর দেশে একটি মানুষও গৃহহীন থাকবেনা- শেখ হাসিনা বৈশ্বিক সংকটের প্রেক্ষিতে খাদ্যশস্য উৎপাদন বাড়াতে পদক্ষেপ নুহা-নাবার চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী: বিএসএমএমইউ উপাচার্য ৫ম দফায় আবারো বাড়লো তিন উপজেলায় পর্যটকদের ভ্রমণের নিষেধাজ্ঞা লামায় উচ্ছেদ আতংকে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার

বৈশ্বিক সংকটের প্রেক্ষিতে খাদ্যশস্য উৎপাদন বাড়াতে পদক্ষেপ

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ১৫০ জন নিউজটি পড়েছেন

এস এম নাসিম>>

পৃথিবী এখন খাদ্যসংকটের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে। মহামারির পর সারা বিশ্ব অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের পথে চলছিল। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ আবার বিশ্বকে বড় সংকটে ফেলে দিয়েছে। সরবরাহ অনিশ্চয়তায় বৈশ্বিক খাদ্য নিরাপত্তা সংকটের প্রেক্ষিতে সরকার দেশে চলতি অর্থবছরে ধান উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্য নির্ধরণ করেছে । এই লক্ষ্য পূরণে সরকার নানামুখী কার্যক্রম গ্রহণ করেছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের (ডিএই) কর্মকর্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুয়ায়ী- চলতি অর্থবছরে ২০২১-২০২২ অর্থবছরের তুলনায় ২ দশমিক ৫ বিলিয়ন টন বেশি ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করা হয়েছে।

ডিএই মহাপরিচালক এম বেনজির আলম বলেন, ‘আমরা নতুন কিছু উচ্চ ফলনশীল জাতের ধান ও গমসহ আরো কিছু শস্য উৎপাদনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি এবং কৃষকদের নতুন উৎপাদন কৌশল শেখাচ্ছি।’ তিনি আরো বলেন, দেশের এই প্রধান খাদ্যসশ্য উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তাগণকে চাষাবাদ প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণ এবং কৃষকদের সহয়তা ও প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এই কর্মকর্তাদের সকলেই কৃষিবিদ।

ডিএই কর্মকর্তারা বলেন, বর্তমান অর্থবছরের ধান উপাদন লক্ষ্যমাত্রা ইতোমধ্যেই অর্জিত হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও ফলন বেশি হওয়ার জন্য আমন ও আউস ধানের ব্যাপক উৎপাদন অবদান রেখেছে। উচ্চ ফলনশীর ধানের এই দুটি জাতের কারণেই কর্মকর্তারা এখন ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করার ব্যাপারে ব্যাপকভাবে আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠতে পারছেন।

ডিএই জানায়, দেশে ২০২১-২০২২ অর্থবছরে ৩৯ দশমিক ১৮ মিলিয়ন টন ধান উৎপাদিত হয় আর ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জন্য এই ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪১ দশমিক ৫ মিলিয়ন টন। ফলনশীলতার দিক দিয়ে বোরো ধান শীর্ষ স্থানে আছে। অধিকতর উৎপাদনের দিক দিয়ে এর পরেই আছে আমন ও আউস জাতের ধান।

দেশের মোট উৎপাদিত ধানের ৫৫ শতাংশই বোরো ধান। এরপর অধিক উৎপাদনের দিক দিয়ে রয়েছে আমন ও আউস ধান। গড়ে বছরে মোট উৎপাদিত ধানের ৩৮ শতাংশ আমন ধান ও ৭ শতাংশ আউস ধান। রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকট ও খাদ্য সরবরাহ ব্যবস্থা বিঘিœত হওয়ার প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি দেশের খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে বলেছেন।

ডিএই প্রধান বলেন, ‘আমাদেরকে অবশ্যই খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে হবে।’চলতি বছরের জন্য ডিএই আউস আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে ৩ দশমিক ৭ মিলিয়ন টন। গত বছরে এই জাতের ধান উৎপাদিত হয়েছে ৩ দশমিক ২ মিলিয়ন টন। আমন চাষাবাদ এখনোও চলছে।

ডিএই আশা করছে যে, চলতি বছরে এই জাতের ধানটি লক্ষ্যমাত্রাকে ছাড়িয়ে গিয়ে ১৬ দশমিক ৩৪ মিলিয়ন টন ধান উৎপাদিত হবে।

গত অর্থবছরের আমন ধানের উৎপাদন হয়েছিল ১৪ দশমিক ৯৫ মিলিয়ন টন। ডিএই বোরো উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে ২১ দশমিক ৫৩ মিলিয়ন টন। গত অর্থবছরে ২০ দশমিক ০৯ মিলিয়ন টন বোরো ধান উৎপাদিত হয়েছিল।

ডিএই মহাপরিচালক বলেন, তার অফিস ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে গম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল প্রায় ১ দশমিক ২ মিলিয়ন টন। গত বছর এই জাতের ধান উৎপাদিত হয়েছিল ১ দশমিক ৮ মিলিয়ন টন। বেনজির আলম বলেন, ‘আমরা একই সাথে শাকসবজি, আলু, তৈলবীজ, মসূর ডাল, পিঁয়াজ এবং অন্যান্য প্রধান শস্যের উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছি।’

সূত্র: বাসস,বাংলাদেশ জার্নাল

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আর নিউজ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:২৪ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:১৬ অপরাহ্ণ
  • ১৬:১১ অপরাহ্ণ
  • ১৭:৫১ অপরাহ্ণ
  • ১৯:০৬ অপরাহ্ণ
  • ৬:৩৭ পূর্বাহ্ণ
© All rights reserved ©paharkantho.com-২০১৭-২০২১
themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!