মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন
প্রধান সংবাদ :
চীনের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী বান্দরবান জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে বেনজীরের আহমদের সম্পত্তি বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে পাহাড় ধসে একজনের মৃত্যু নাইক্ষ্যংছড়িতে ঘুমন্ত স্বামীর অন্ডকোষ ব্লেড দিয়ে কেটে দিল স্ত্রী! লুট করা অস্ত্র ফেরত দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আহ্বান : মানব বন্ধনে বম জনগোষ্ঠী থানচিতে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত বান্দরবানে ও রয়েছে বেনজীর আহমেদের সম্পদ, দেখাশোনা করেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ডাকা ধর্মঘটে ভোগান্তিতে যাত্রীরা -থানচি সীমান্তবর্তী এলাকায় নিরাপত্তার বাহিনীর সাথে গোলাগুলিতে কেএনএফ দুই সদস্য নিহত থানচিতে কেএনএফ সতর্কতায় বিজিবি’র গণসংযোগ

কাজুবাদাম এবং কফি: আমাদের পরবর্তী রপ্তানিমুখী ফসল

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিতঃ শনিবার, ৯ এপ্রিল, ২০২২
  • ৬১২ জন নিউজটি পড়েছেন
কৃষিবিদ শহিদুল ইসলাম প্রকল্প পরিচালক কাজুবাদাম ও কফি প্রকল্পের গবেষণা, উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ

বাংলাদেশ একটি কৃষিপ্রধান দেশ। বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকারের সময়োপযোগী নীতির কারণে বর্তমানে আমাদের কৃষি বিশ্বের অন্যান্য দেশের কাছে রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। কৃষির সব বিভাগেই আমাদের সাফল্য অভাবনীয়। আমরা গত কয়েক বছর ধরে মাঠের ফসল বিশেষ করে ধারাবাহিক ফসল উৎপাদনে সাফল্য অর্জন করছি।

এখন আমাদের দেশীয় কৃষিকে বাণিজ্যিকীকরণ ও লাভজনক করার জন্য নতুন সম্ভাবনাময় ফসলের দিকে নজর রাখার পাশাপাশি উদ্যানজাত ফসল উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতার জন্য চোখ রাখতে হবে। এ ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক বাজারের কথা মাথায় রেখে কাজুবাদাম ও কফির চাষ ও সম্প্রসারণে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

মাননীয় কৃষিমন্ত্রী ডক্টর মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, “কাজুবাদাম ও কফি চাষ দেশের পার্বত্য অঞ্চলে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ব্যাপক ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে পারে।” দেশের পার্বত্য ও উত্তরাঞ্চল,” তিনি যোগ করেন। মাননীয় মন্ত্রী উন্নত জাত ও প্রযুক্তি উদ্ভাবনের জন্য কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাদেরও নির্দেশ দেন। কৃষিকে লাভজনক করতে কাজুবাদাম ও কফির মতো অপ্রচলিত অর্থকরী ফসল চাষ করা প্রয়োজন।

কাজুবাদাম এবং কফি যেহেতু আমাদের পরবর্তী রপ্তানিমুখী ফসল হবে, তাই কাজুবাদাম ও কফির উৎপাদন বাড়াতে কৃষি মন্ত্রণালয় ২১১.৮৪ কোটি টাকার একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে “কাজু বাদাম ও কফির গবেষণা, উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ” এর মাধ্যমে। এই প্রকল্পে ১০,০০০ হেক্টর জমি কাজু বাদাম ও কফি চাষের আওতায় আসবে এবং ২০২৫ সালে এটি সম্পন্ন হলে দেশে বছরে ২৫,০০০ টন কাঁচা কাজু বাদাম উৎপাদন হবে।

কৃষি মন্ত্রণালয় ১.০ বিলিয়ন ডলার মূল্যের প্রক্রিয়াজাত কাজু রপ্তানি করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।প্রকল্পের অন্য লক্ষ্য হচ্ছে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার বিভিন্ন চাহিদা কমিয়ে ২০২১ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (SDG) অর্জনের মাধ্যমে ২০৪১ সালের মধ্যে আমাদের দেশকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তোলা।

প্রকল্পের সামগ্রিক হল কর্মবাদ লক্ষ্য এবং কফির বৃদ্ধি এবং তাদের বাণিজ্যিকীকরণের মাধ্যমে লক্ষ্যবস্তু জনগণের কর্মসংস্থান এবং জীবনযাত্রার উন্নতি। এর পাশাপাশি কাজ ও কফি চাষের গবেষণা মডেম ও উন্নত প্রযুক্তিনির্ভর প্রযুক্তি ব্যবহার করার জন্য এই প্রকল্পের মাধ্যমে ও প্রশিক্ষিত জনবল তৈরি করা হবে।

১৯৬১-১৯৬২ সালে, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর পাহাড়ী এলাকায় অন্যান্য ফলের চারাসহ আফ্রিকা থেকে আনা কিছু কাজুবাদাম চারা রোপণ করে। কিন্তু বিপণন ও প্রক্রিয়াকরণের সুযোগ না থাকায় অনেকেই সেগুলো কেটে ফেলেন। পরে স্থানীয় পাইকাররা কৃষকদের কাছ থেকে কাঁচা কাজুবাদাম সংগ্রহ করে রপ্তানি শুরু করলে স্থানীয় কৃষকরা আবার বাদাম চাষে আগ্রহী হন।

কৃষি মন্ত্রির মতে, ২০১৮-২০১৯ সালে। তিনি দেশে কাঁচা কাজুবাদামের উৎপাদন ছিল ৯৬২মেট্রিক টন, যা ২০১৯-২০২০সালে বেড়ে ১৩২৩ মেট্রিক টন হয়েছে। বর্তমানে কাজুবাদাম গাছ ভিত্তিক ফসলের ব্যবসায় তৃতীয়। এখন কাজুবাদামের বিশ্বব্যাপী প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলারের ব্যবসা রয়েছে। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী প্রায় ৫৯.৩০ লাখ টন কাজুবাদাম উৎপাদিত হয়। ভিয়েতনাম বিশ্বের সর্বোচ্চ কাজুবাদাম উৎপাদনকারী দেশ।

অন্যদিকে, ব্রাজিল বিশ্বের সর্বোচ্চ কফি উৎপাদনকারী দেশ। প্রতি বছর সারা বিশ্বে ৯০ লাখ টন কফি উৎপাদিত হয়। প্রতি বছর কফি ব্যবসার বিশ্বব্যাপী টার্নওভার ৩০ বিলিয়ন ডলার হয় কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ কৃষি কার্যক্রমের উন্নয়ন বাস্তবায়নের প্রধান সংস্থাগুলির মধ্যে একটি। কাজুবাদাম ও কফি গবেষণা, উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ প্রকল্পের তত্ত্বাবধানে পতিত পাহাড়ি জমি ব্যবহার করে কাজুবাদাম ও কফির উৎপাদন বাড়ানো হবে।

প্রকল্পের বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণের জন্য, কাজুবাদাম এবং কফির উৎপাদন ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে। প্রকল্পে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি সমগ্র জাতীয় কৃষিতে প্রতিফলিত হবে। প্রকল্প এলাকা (ডিএই’র অংশ) ৭ বিভাগের অধীনে ১৯টি জেলার ৬৬ টি উপজেলা এবং ৩০টি উদ্যানপালন কেন্দ্র রয়েছে। জেলাগুলো হলো- রাঙামাটি খাগড়াছড়ি, বান্দরবান, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, পঞ্চগড়, দিনাজপুর, রংপুর, সিলেট, টাঙ্গাইল, নরসিংদী। ময়মনসিংহ। শেরপুর, যশোর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া ও নাটোর।

অধিকন্তু, প্রকল্প এলাকা (BARI শাখা) ৪টি বিভাগের অধীনে ৯টি জেলার ২২টি উপজেলা নিয়ে গঠিত। জেলাগুলো হলো- খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, সিলেট, মৌলভীবাজার, গাজীপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ ও শেরপুর।

DAE-এর কার্যক্রম বিভিন্ন প্রকার ও প্রযুক্তির প্রদর্শনী, কৃষকদের জন্য প্রশিক্ষণ, SAAO, কর্মকর্তা, এবং কিছু প্রেরণামূলক ট্যুর স্থাপন করছে; কৃষকদের গ্রুপের মধ্যে কফি প্রক্রিয়াকরণ যন্ত্রপাতি হস্তান্তর, সৌর সেচ সেট আপ নির্মাণ, পার্বত্য অঞ্চলে প্রশিক্ষণ হল নির্মাণ; কফি এবং কাজুবাদামের চারা/কলম উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য উদ্যানপালন কেন্দ্রের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা।

প্রাথমিকভাবে কৃষি সম্প্রসারণ কার্যক্রমের পাশাপাশি ভূমিধস থেকে সুরক্ষার জন্য পাহাড়ি অঞ্চলে কাজুবাদাম গাছ লাগানো হয়েছিল। কিন্তু এখন এটি দ্রুত বর্ধনশীল, পরিবেশবান্ধব এবং লাভজনক। এর বীজ থেকে অর্জিত বাদাম সুস্বাদু, মুখে জল আনা এবং পুষ্টিকর। এটি অর্থনৈতিকভাবেও মূল্যবান। বাদামের আবরণের তেল শিল্প কাজের জন্য একটি মূল্যবান জিনিস। বাদামের ফল থেকে জুস, ভিনেগার এবং অ্যালকোহলও তৈরি হয়।

আমাদের দেশের পরিবেশ কাজুবাদাম চাষের জন্য সহায়ক। পার্বত্য অঞ্চলে কাজুবাদাম চাষের উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে কারণ কম দামে জমির প্রাপ্যতা রয়েছে। কফি পান করলে কাজ করার ক্ষমতা বাড়ে। গবেষণা বলছে, প্রতিদিন কয়েক কাপ কফি পান করলে দীর্ঘায়ু হয়। এই পানীয়টি ক্যান্সার প্রতিরোধক উপাদান হিসেবেও কাজ করে। বিশ্বের প্রায় ৭০টি দেশে কফি উৎপাদিত হয়। কফির চাহিদা দিন দিন বাড়ছে।

বান্দরবান জেলার বিভিন্ন উপজেলায় এখন প্রচুর পরিমাণে কফি উৎপাদন হচ্ছে। বান্দরবানের আবহাওয়া কফি চাষের উপযোগী। এদেশে কফি চাষের উদ্যোগ নেওয়া হলে স্থানীয় চাহিদা কমিয়ে রপ্তানি করার খুব সম্ভাবনা রয়েছে। উত্পাদিত কাজুবাদাম এবং কফি সংগ্রহ, শুকানো এবং সংরক্ষণের জন্য অনেক শ্রমিকের প্রয়োজন। এটি উল্লেখযোগ্য যে কাজুবাদাম উৎপাদন শিল্পে জড়িত মোট শ্রমিকের ৯০ শতাংশই নারী।

তাই এ শিল্পকে নারীবান্ধব করে চাকরি বঞ্চিত নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে। একটি কারখানায় প্রতিদিন ১৫০ থেকে ২০০ জন শ্রমিক প্রয়োজন যা প্রতিদিন চার টন কাজুবাদাম প্রক্রিয়াজাত করে।

প্রকল্পের মেল লক্ষ্য নারীদের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা। প্রকল্পটি নারীদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নের মাধ্যমে তাদের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে।

শেষ পর্যন্ত, আমরা আশা করতে পারি যে প্রকল্পের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে কাজুবাদাম ও কফি উৎপাদনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে।

কারণ উন্নত প্রযুক্তি উদ্ভাবনের মাধ্যমে কাজুবাদাম এবং কফি ফসলের উৎপাদন ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে, ফসল চাষের ঘনিষ্ঠতা বাড়ানো হবে; কাজুবাদাম ও কফির উন্নত জাতের উদ্ভাবনের মাধ্যমে কৃষকদের জীবন-জীবিকার উন্নতি ঘটবে এবং পাহাড়ি এলাকার দরিদ্র জনগোষ্ঠী বিশেষ করে নারী ও বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আর নিউজ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫৭ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৮ অপরাহ্ণ
  • ১৬:৪৩ অপরাহ্ণ
  • ১৮:৫৩ অপরাহ্ণ
  • ২০:১৭ অপরাহ্ণ
  • ৫:১৯ পূর্বাহ্ণ
© All rights reserved ©paharkantho.com-২০১৭-২০২১
themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!